, প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে! প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে!! বিস্তারিত জানতে : ০১৬৭৬৩৬৯৪১৫
প্রচ্ছদ | জাতীয় | আন্তর্জাতিক | খেলাধুলা | বিনোদন | রাজনীতি | লাইফ স্টাইল | শিক্ষাঙ্গন | অর্থ বানিজ্য | আইন আদালত | আবহাওয়ার নিউজ | ইতিহাস ঐতিহ্য | এক্সক্লুসিভ নিউজ | কৃষি সংবাদ | চাকরির খবর | সারাদেশ | সাহিত্য সংস্কৃতি | স্মৃতিতে অম্লান | জীবন ও দর্শন | বিজ্ঞান প্রযুক্তি

আওয়ামী লীগ-জাতীয় পার্টির ‘বিচিত্র’ আসন ভাগাভাগি!

আপডেট : December, 11, 2018, 12:14 pm

নিউজটি পড়া হয়েছে : 61 বার

আওয়ামী লীগ-জাতীয় পার্টির 'বিচিত্র' আসন ভাগাভাগি!

জিপি নিউজঃ বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের সাথে জাতীয় পার্টির আসন ভাগাভাগির বিষয়টি এখন এমন এক বিচিত্র চেহারা নিয়েছে যে তাদের মধ্যে আদৌ সমঝোতা হয়েছে কিনা তা নিয়েই সন্দেহ দেখা দিয়েছে।

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তাদের মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টিকে ২৯টি আসন ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু এর বাইরে আরও প্রায় দেড়শ’ আসনকে উন্মুক্ত হিসেবে উল্লেখ করে জাতীয় পার্টি সেগুলোতে তাদের লাঙ্গল প্রতীকে প্রার্থী দিয়েছে। এই আসনগুলোতে নৌকারও প্রার্থী থাকছে। এই পরিস্থিতি হয়েছে কেন?

জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, মহাজোট থেকে মাত্র ২৯টি আসন পেয়ে তারা সন্তুষ্ট হতে পারেননি।

কিন্তু সেই আসনগুলো তো তারা নিয়েছেন। তার পরে আবার আরও ১৪৫টি আসনে লাঙ্গল প্রতীকে প্রার্থী দেয়া হলো কেন – এ নিয়েই সৃষ্টি হয়েছে রহস্যের ।

দলটির নেতা জেনারেল এরশাদও পর্দার আড়ালে চলে গেছেন।

মনোনয়ন প্রক্রিয়া শুরুর পর তিনি ছিলেন হাসপাতালে। ২০১৪ সালের ৫ই জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের সময়ও জেনারেল এরশাদ এক ধরণের রহস্য সৃষ্টি করে রেখেছিলেন।এবার দলটির নেতাদের অনেকে মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ তুলেছিলেন প্রকাশ্যে।

বিশ্লেষকদের অনেকে বলছেন, জোটের বাইরে প্রার্থী দেয়ার ক্ষেত্রে দলের ভিতরের চাপ বা পরিস্থিতি সামাল দেয়ার বিষয়টি একটি কারণ হতে পারে।

তবে জাতীয় পার্টির নেতৃত্ব সেই অভিযোগ অস্বীকার করেছে। মশিউর রহমান রাঙ্গা বলেছেন, তাদের দলে প্রার্থী বেশি হওয়াতেই তারা জোটের বাইরে উন্মুক্ত আসনে প্রার্থী দিয়েছেন।

“এখন প্রার্থীরা নির্বাচন করতে চায়। আমরাও চাই, সবাই নির্বাচনমুখী হোক। ভোটের সময় কর্মিরা সবাই আশা করে যে নিজের এলাকা থেকে প্রার্থী হবে। সুতরাং তাদের খুশি রাখাটাও আমাদের দায়িত্ব। এখন পাঁচজন ভাল প্রার্থী। তার মধ্যে জোটের জন্য একজন বেছে নেয়া খুব কঠিন হয়” – বলছেন তিনি।

জাতীয় পার্টির আরও কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে ধারণা পাওয়া গেছে যে দলটি আওয়ামী লীগের কাছে ৫৪টি আসন চেয়েছিল, কিন্তু তাতে সমঝোতা হয়নি। তাদের দলের নেতা জেনারেল এরশাদের চাওয়া অনুযায়ী আসন না পাওয়াতেই দলটি বাড়তি আসনে প্রার্থী দিয়েছে।

কিন্তু মশিউর রহমান রাঙ্গা তাদের দলের অতিরিক্ত প্রার্থী দেয়ার বিষয়কে মহাজোটের কৌশল বলে দাবি করেছেন।

“নির্বাচনে যদি আমরা দেখি, আমাদের জোটের বাইরে অন্য কেউ জিতে যেতে পারে, তখন কিন্তু আমারা সেখানে এক হয়ে যাব। এছাড়া উন্মুক্ত আসন থাকায় আমাদের এজেন্ট বেশি থাকবে। আমাদের লোকজন বেশি থাকবে। এটা একটা কৌশল হিসেবে আমরা করেছি। আমাদের মহাজোটে কোন মনোমালিন্য নিয়ে আমরা এটা করি নাই।আমরা আলোচনা করেই এটা করেছি।”

জাতীয় পার্টির অন্যান্য সূত্রগুলো বলছে, তাদের জোটের একটা কৌশল ছিল যে, বিএনপি নির্বাচনে অংশ না নিলে মহাজোটের বাইরে থেকে জাতীয় পার্টি সব আসনে নির্বাচন করবে।

শেষপর্যন্ত বিএনপিসহ বিরোধী জোট নির্বাচনে অংশ নেয়ায় মহাজোটের অনেক কৌশল পাল্টাতে হয়েছে।

এরপরও শেষ পর্যায়ে গিয়ে বিএনপি এবং তাদের জোট শরিকরা ভোটযুদ্ধ থেকে সরে যায় কিনা, এখনও সেই সন্দেহ রয়েছে আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি এবং তাদের মহাজোটে।

সে ধরণের পরিস্থিতি হলেও যাতে প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন দেখানো যায়, এই বিষয়কে অন্যতম একটি কারণ বলা যেতে পারে। দল দু’টোর কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে এমন ধারণাই পাওয়া যায়।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা: দীপু মণিও বলেছেন, শরিকদলের অতিরিক্ত প্রার্থী রাখার কারণে তাদের ভোটে তেমন কোন প্রভাব পড়বে না বলে তিনি মনে করেন।

“আসন বন্টন নিয়ে হয়তো আমরা সবক্ষেত্রে একমত হতে পারিনি।কিন্তু আমাদের নির্বাচনে এর বড় কোন প্রভাব পড়বে না।”

তিনি আরও বলেছেন, “যারা আমাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে আছেন।যেভাবে তারা এখনও এগুচ্ছেন। যদিও তারা নির্বাচনে এসেছেন, কিন্তু তাদের পুরো যে প্রক্রিয়া, তাতে তারা শেষপর্যন্ত নির্বাচনে কি করবে, সেটিওতো দেখবার বিষয়। কাজেই সবকিছুকে মাথায় রেখেই আমরা নিজস্ব নির্বাচনী কৌশল বা কর্মকান্ড আমরা পরিচালনা করবো, এবং এক্ষেত্রে আমরা যেটা করছি, তা আমাদের আলোচনার ভিত্তিতেই হচ্ছে। কারণ মহাজোটে আমাদের ঐক্য অটুট আছে।”

শুধু জাতীয় পার্টিই নয়, আওয়ামী লীগের আরেক শরিক অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরীর বিকল্প ধারা জোট থেকে তিনটি আসন পাওয়ার পর অতিরিক্ত ২০টি আসনে কুলা প্রতীকে প্রার্থী দিয়েছে।

হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাসদও কয়েকটি উন্মুক্ত আসনে প্রার্থী দিয়েছে।

তবে মহাজোটের কৌশল যাই থাকুক না কেন আওয়ামী লীগের তৃণমুলের নেতা কর্মিদের মাঝে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।

সুত্র- বিবিসি

Facebook Comments
Share Button

সম্পাদক- মো: মেহেদী হাসান সূইট, সহ-সম্পাদক : মোহাম্মদ উল্লাহ পলাশ, নির্বাহী সম্পাদক : গিয়াস উদ্দিন আহমেদ
জিনিয়াস প্রোডাক্ট প্রাইভেট লিমিটেড ৭৫/এ কলাবাগান ঢাকা-১২০৫ কর্তৃক প্রকাশিত
মোবাইল : ০১৭১৯-৪৭৭১১৩, নিউজ : ০১৭১১-০৫৬৫৭২, ০১৬৭৬৩৬৯৪১৫
Email : gias.gpnews24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com

শিরোনাম :
★★ নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠকে মন্ত্রীদের সততার সহিত কাজ করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী ! ★★ হুইল চেয়ারে করে আদালতে খালেদা জিয়া ★★ নাজমুল হুদা জামিন পেলেন! ★★ আজ পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ ★★ খালেদা জিয়ার ১১ মামলার শুনানি ১৭ ফেব্রুয়ারি । ★★ এসএসসি পরীক্ষা চলাকালীন একমাস কোচিং সেন্টার বন্ধ থাকবে : শিক্ষামন্ত্রী ★★ রিজার্ভ চুরির টাকা উদ্ধারে চলতি মাসেই নিউইয়র্কের আদালতে মামলা করা হবে : অর্থমন্ত্রী ★★ সাংবাদিকদের সার্বিক কল্যান নিশ্চিত করা হবে : তথ্যমন্ত্রী ★★ পুত্র সন্তানের মা হলেন টিউলিপ ★★ সরকার সকলের জন্য সমানভাবে কাজ করবে